বৃহস্পতিবার । অক্টোবর ২৪, ২০১৯ । । ০৮:৫৬ এএম

চাষাড়ায় শেষ হল তিন দিনের শারদ মেলা

অনলাইন নারী উদ্যোক্তাদের উচ্ছাস

সৈনূই জুয়েল | নতুনআলো টোয়েন্টিফোর ডটকম
প্রকাশিত: 2019-09-19 18:14:34 BdST হালনাগাদ: 2019-09-20 06:47:32 BdST

Share on

নারায়ণগঞ্জের চাষাড়ায় অনলাইনভিত্তিক নারী উদ্যোক্তাদের মেলায় ক্রেতাদের ভিড়। ছবি: নতুনআলো টোয়েন্টিফোর ডটকম

ফেইসবুক কতটা শক্তিশালী- তা নতুন করে বলার অপেক্ষা রাখেনা। তবে কতটা আশাজাগানিয়া আর উচ্ছ্বাসের তার আরেকটি নজির নারায়ণগঞ্জের তিন দিনের শারদ মেলা।


নারায়ণগঞ্জের চাষাড়ায় অনলাইনভিত্তিক নারী উদ্যোক্তাদের পণ্য নিয়ে আয়োজিত তিন দিনের শারদ মেলা শেষ হল। চাষাড়ার বাঁধন কমিউনিটি সেন্টারের চতুর্থ তলায় এ মেলার আয়োজন করা হয়। ১৬ থেকে ১৮ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত চলে এ মেলা।

মেলায় নিজ স্টলে ফ্যাশন ডিজাইনার শাহতাজ পারভীন মুনমুন। ছবি: নতুনআলো টোয়েন্টিফোর ডটকম
মেলায় নিজ স্টলে ফ্যাশন ডিজাইনার শাহতাজ পারভীন মুনমুন। ছবি: নতুনআলো টোয়েন্টিফোর ডটকম

বুধবার (১৮ সেপ্টেম্বর) ছিল মেলার শেষ দিন। ক্রেতা-দর্শনার্থীদের ভিড় ছিল উদ্যোক্তাদের জন্য উৎসাহব্যঞ্জক।


জিপসি মান্ডালা নকশায় বিছানার চাদর, হাতে বোনা নকশাযুক্ত বাহারী কুশন কভার, বর্ণিল নকশার মেয়েদের জুতার সমাহার নিয়ে মেলায় হাজির হয়েছিলেন বানজারা ক্র্যাফটের স্বত্বাধিকারী সৈয়দা আফসানা আহমেদ। তবে তার হাতে তৈরি ক্যান্ডিসদৃশ সাবান ছিল পুরো মেলার সবিশেষ নজরকাড়া অনন্য পণ্য।

মেলায় বানজারা ক্র্যাফটের স্বত্বাধিকারী সৈয়দা আফসানা আহমেদ। ছবি: নতুনআলো টোয়েন্টিফোর ডটকম
মেলায় বানজারা ক্র্যাফটের স্বত্বাধিকারী সৈয়দা আফসানা আহমেদ। ছবি: নতুনআলো টোয়েন্টিফোর ডটকম

তিনি নতুনআলো টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, এ মেলায় আমার প্রথম অংশগ্রহণ। তিন দিনে বিশেষত শেষ দিনে বেশ ভালো সাড়া পেয়েছি। মেলায় লোক সমাগম সন্তোষজনক ছিল। মেলার প্রচারণায় গুরুত্ব দিয়েছেন আয়োজকরা, যা প্রশংসার দাবি রাখে। এ কারণে মেলায় মানুষের ভিড় ছিল। উদ্যোক্তা হিসেবে মেলায় অংশ নিতে পেরে আমি আনন্দিত।


তিন দিনের এ মেলার আয়োজন করে ফেইসবুক গ্রুপ 'নারায়ণগঞ্জ নারী উদ্যোক্তা সংগঠন'। এ গ্রুপটির বয়স দুই বছর। সাতজন অ্যাডমিন ও দুই জন মডারেটর- এ নয়জন নারী পরিচালনা করছেন গ্রুপটি।

নারায়ণগঞ্জের চাষাড়ায় তিন দিনের শারদ মেলায় নানা রকম বাহারী পণ্যের স্টল। ছবি: নতুনআলো টোয়েন্টিফোর ডটকম
নারায়ণগঞ্জের চাষাড়ায় তিন দিনের শারদ মেলায় নানা রকম বাহারী পণ্যের স্টল। ছবি: নতুনআলো টোয়েন্টিফোর ডটকম

বিগত দুই বছরে গ্রুপটি এ নিয়ে আটটি মেলার আয়োজন করেছে। আয়োজকরা বলছেন, প্রতিটি মেলা সাফল্যের মুখ দেখেছে। মেলায় অংশ নেয়া বেশিরভাগ উদ্যোক্তারাও একই কথা জানান।


গ্রুপটির অন্যতম অ্যাডমিন কাজী শাহতাজ পারভীন মুনমুন নতুনআলো টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, আমাদের এ গ্রুপের উদ্দেশ্য অধিক নারী উদ্যোক্তা সৃষ্টি করা। নারীদের আত্মকর্মসংস্থান করা। আমাদের ফেসবুক গ্রুপটির সদস্য প্রায় ১৫ হাজার। আমরা মূলত আমাদের ফেইসবুক গ্রুপে থাকা নারী উদ্যোক্তাদের ব্যবসায় উৎসাহিত করতে কাজ করছি। নারীরা আর্থিকভাবে স্বাবলম্বী হবেন, একটি ব্যবসায়িক পরিচয় বহন করবেন- এমন স্বপ্ন দেখি আমরা।

মেলায় গহনা, ব্যাগ, পুতুলসহ নানা রকম পণ্য নিয়ে হাজির হয়েছিল ব্লু স্টোন নামের এ স্টলটি। ছবি: নতুনআলো টোয়েন্টিফোর ডটকম
মেলায় গহনা, ব্যাগ, পুতুলসহ নানা রকম পণ্য নিয়ে হাজির হয়েছিল ব্লু স্টোন নামের এ স্টলটি। ছবি: নতুনআলো টোয়েন্টিফোর ডটকম

তিনি জানান, মেলায় ৫০টি স্টলে প্রায় শতাধিক নারী উদ্যোক্তা অংশ নিয়েছে। তাদের বেশিরভাগই ফেইসবুকভিত্তিক ক্ষুদ্র বিনিয়োগের উদ্যোক্তা। ব্যয় কমিয়ে কিভাবে ব্যবসা করা যায়, তার জ্বলজ্বলে উদাহরণ এ নারী উদ্যোক্তারা।


শাহতাজ পারভীন মুনমুন একজন সফল ও অভিজ্ঞ ফ্যাশন ডিজাইনার। তার ফ্যাশন হাউজ মুনমুন'স এর একটি স্টল ছিল মেলায়। বাহারী নকশায় বর্ণিল কাপড়ের থ্রিপিস ছিল এ স্টলের অন্যতম আকর্ষণ। সঙ্গে আরও ছিল বিছানার চাদর আর কুর্তি।

মেলার অন্যতম আয়োজক মুনমুনস এর স্বত্ত্বাধিকারী কাজী শাহতাজ পারভীন মুনমুন ও বানজারা ক্র্যাফটের স্বত্বাধিকারী সৈয়দা আফসানা আহমেদ। ছবি: নতুনআলো টোয়েন্টিফোর ডটকম
মেলার অন্যতম আয়োজক মুনমুনস এর স্বত্ত্বাধিকারী কাজী শাহতাজ পারভীন মুনমুন ও পাশে বানজারা ক্র্যাফটের স্বত্বাধিকারী সৈয়দা আফসানা আহমেদ। ছবি: নতুনআলো টোয়েন্টিফোর ডটকম

গ্রুপের আরেক অ্যাডমিন জোবায়দা তাবাসসুম। তার স্টলের নাম ট্যাব'জ কালেকশন। গ্রুপ কর্তৃক আয়োজিত সবগুলো মেলায় তিনি অংশ নিয়েছেন। তার স্টলে দেখা গেল দিল্লী বুটিক্স, কুর্তি, লেহেঙ্গা, থ্রিপিসসহ ভারতীয় ও পাকিস্তানি নানা ঘরানার পোশাক। এবারের মেলায়ও ক্রেতাদের ভালো সাড়া পেয়েছেন বলে জানান এই নারী উদ্যোক্তা।


উচ্চ মাধ্যমিক দ্বিতীয় বর্ষে পড়ুয়া পুষ্পিতা সাহার সঙ্গে কথা হয় গহনা, শাড়ি আর থ্রিপিস সজ্জিত একটি স্টলে। স্টলের নাম রমনি। এর স্বত্বাধিকারী পান্না সাহা। মায়ের অনুপস্থিতিতে দায়িত্ব পালন করছেন মেয়ে। তিনিও জানান, ক্রেতাদের ভালো সাড়া মিলছে মেলায়।


এভাবে একে একে কথা হয় এনজে ফ্যাশন হাউজের স্বত্বাধিকারী নাদিয়া জাহান, ফ্যাশন উইজার্ডের তামান্না, ডে স্টারের সিনথিয়া আক্তার, মারিয়া'স কালেকশনের মারিয়া শারমিন, সোনিয়া ফ্যাশনের সোনিয়া এরশাদসহ বেশ কয়েকজন নারী উদ্যোক্তাদের সঙ্গে। প্রায় সবার মধ্যেই মেলায় ভালো বিক্রির আমেজ ছিল লক্ষণীয়।

মেলায় নানা রকম পণ্যের স্টল। ছবি: নতুনআলো টোয়েন্টিফোর ডটকম
মেলায় নানা রকম পণ্যের স্টল। ছবি: নতুনআলো টোয়েন্টিফোর ডটকম

সপরিবারে মেলায় ঘুরতে আসা আজিজুল ইসলাম জানান, মেলা আসি এক জায়গায় অনেক পণ্য পাওয়া যায় বলে। কিছু ভিন্ন পণ্যও চোখে পড়েছে। স্ত্রীকে গহনা আর ছেলেকে খেলনা কিনে দিয়েছি। স্টল ঘুরে দেখতে ভালোই লাগছে।


মেলার আরেক দর্শনার্থী আবিদা রহমান এসেছিলেন থ্রিপিস আর শাড়ি কিনতে। তিনি বলেন, ভালো থ্রিপিস পেলেও, পছন্দের শাড়ি পাইনি।

মেলায় বানজারা ক্র্যাফটের স্টলের পণ্য দেখছেন ক্রেতারা। ছবি: নতুনআলো টোয়েন্টিফোর ডটকম
মেলায় বানজারা ক্র্যাফটের স্টলের পণ্য দেখছেন ক্রেতারা। ছবি: নতুনআলো টোয়েন্টিফোর ডটকম

রিতা, সুমন, হাসনা, সুমি- ওরা এসেছিল মেলা ঘুরে দেখতে আর খাবার খেতে। 'খাবারগুলো মজার ছিল' জানায় এই স্কুল পড়ুয়া বন্ধুদের দল।


তিন দিনের এ মেলায় আর্থিক অংকে বিক্রির পরিমাণ কত হবে- এমন প্রশ্নের উত্তরে শাহতাজ মুনমুন বলেন, প্রায় ৫০ থেকে ৬০ লাখ টাকার টার্নওভার হবে বলে ধারণা করছি আমরা।


গহনা, পোশাক ছাড়াও মেলায় ছিল খাবারের স্টল আর সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের বিনোদন মঞ্চ।

মেলার শেষ দিনে ক্রেতা ও দর্শনার্থীদের সমাগম ছিল বেশি। ছবি: নতুনআলো টোয়েন্টিফোর ডটকম
মেলার শেষ দিনে  (১৮ সেপ্টেম্বর)ক্রেতা ও দর্শনার্থীদের সমাগম ছিল বেশি। ছবি: নতুনআলো টোয়েন্টিফোর ডটকম

মেলার হলরুমে শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত ব্যবস্থা থাকলেও ছিলনা ওয়াইফাই ইন্টারনেট সুবিধা। এ নিয়ে অভিযোগ করেছেন কোন কোন অংশগ্রহণকারী নারী উদ্যোক্তা।


তারা জানান, আমরা যেহেতু প্রধানত ফেইসবুক ও ইন্টারনেটভিত্তিক প্ল্যাটফর্মে ব্যবসা করি তাই আয়োজকদের এর গুরুত্ব বোঝা দরকার ছিল।



  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
  • নির্বাচিত