বৃহস্পতিবার । এপ্রিল ২, ২০২০ । । ০৩:১১ পিএম

বিজিএমইএ-বিকেএমইএ’র সিদ্ধান্ত

নিজস্ব প্রতিবেদক। নতুনআলো টোয়েন্টিফোর ডটকম
প্রকাশিত: 2020-03-23 21:41:20 BdST হালনাগাদ: 2020-03-23 22:24:41 BdST

Share on

বিজিএমইএ-বিকেএমইএ’র সিদ্ধান্ত

তৈরি পোশাক খাত এই মুহূর্তেই বন্ধ ঘোষণা করা হচ্ছে না। আগামী ২৫ তারিখ প্রধানমন্ত্রীর ভাষণের পর এই বিষয়ে সিন্ধান্ত নেওয়া হবে বলে জানিয়েছে বাংলাদেশ পোশাক উৎপাদন ও রফতানিকারক সমিতি (বিজিএমইএ) ও নিট গার্মেন্টস ব্যবসায়ীদের সংগঠন বাংলাদেশ নিটওয়্যার ম্যানুফেকচারার্স অ্যান্ড এক্সপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশনের (বিকেএমইএ) নেতারা। সোমবার (২৩ মার্চ) দুই সংগঠনের সভাপতি এই কথা জানান।

 

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ওপর ভরসা রাখার আহ্বান জানিয়ে বাংলাদেশ পোশাক উৎপাদন ও রফতানিকারক সমিতির (বিজিএমইএ) সভাপতি রুবানা হক বলেন, আগামী ২৫ মার্চ জাতীর উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রী ভাষণ দিবেন।

 

আমরা যেন তার ভাষণের জন্য অপেক্ষা করি। আমারা কোনো মতে আতঙ্কগ্রস্ত হবো না। এখন এমন প্রশ্ন যেন না হয় যে, কোনো ফ্যাক্টরি বন্ধ হচ্ছে। আমাদের দেখতে হবে শ্রমিক ভাই ও বোনেরা তার বেতন সময় মতো পাবে কি না। সেটা তারা পাবে। বেতনের সময় যখন আসবে তখন তারা সেটা পাবে। কেউ ভয় পাবেন না।

 

সোমবার (২৩ মার্চ) গণমাধ্যমে পাঠানো এক ভিডিও বার্তায় বিজিএমইএ সভাপতি রুবানা হক এসব কথা বলেন। তিনি বলেন, ‘শ্রমিক ভাই ও বোনেরা তার বেতন সময় মতো পাবে। কেউ ভয় পাবেন না। ভরসা রাখুন।

 

সরকারের সর্বচ্চ পর্যায় আমাদের আশ্বস্ত করেছেন। তারা প্রত্যেকে আমাদের পাশে আছেন। প্রধানমন্ত্রীর ওপর ভরসা রাখুন। আমাদের তৈরি পোশাক খাতের ৪১ লাখ শ্রমিক শুধু নয়, এর বাইরেও যারা আছেন সবাই ভরসা রাখুন। যতদিন উনি (প্রধানমন্ত্রী) আমাদের পাশে আছেন আমরা কেউ পানিতে পরবো না। দয়া করে ভরসা রাখুন আপনারা।’

 

বিজিএমইএ’র সভাপতি বলেন, ‘আমরা চরম একটি অনিশ্চয়তার মধ্যে আছি। করোনার কারণে পোশাক খাতে ভয়াবহ বিপর্যয় নেমে এসেছে। আমাদের অর্ডার পরিস্থিতি অত্যান্ত শোচনীয় গত চার দিনে দেড় বিলিয়ন ডলার অর্ডার ক্যানসেল হয়েছে।

 

এসব কারখানায় ১২ লাখ শ্রমিক কাজ করেন। এটা কিন্তু শুধুমাত্র যে প্রতিষ্ঠানগুলো আমাদের বিজিএমইএর পোর্টালে এন্ট্রি দিয়েছেন তারা, এর বাইরেও প্রচুর ফ্যাক্টরি রয়েছে। আমরা চেষ্টা করছি প্রত্যেকে এনকারেজ করতে ধৈর্য হারালে হবে না।’

 

এর আগে, বিজিএমইএর সংশ্লিষ্টরা ইঙ্গিত দিয়েছিলেন, যেকোন মূহূর্তে গার্মেন্টস বন্ধ হতে পারে। তবে গার্মেন্টস বন্ধ থাকলেও পোশাক শ্রমিকরা বেতন পাবেন।

 

এদিকে, সোমবার এক জরুরি বৈঠক শেষে নিট গার্মেন্টস ব্যবসায়ীদের সংগঠন বাংলাদেশ নিটওয়্যার ম্যানুফেকচারার্স অ্যান্ড এক্সপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশনের (বিকেএমইএ) সভাপতি সেলিম ওসমান সাংবাদিকদের বলেন, ‘আমরা আমাদের সদস্যদের অনুরোধ করেছি ফ্যাক্টরি চালিয়ে রিস্ক নিবেন না, ২৫ তারিখের মধ্যে সবাইকে গুছিয়ে নিতে বলছি।

 

২৫ তারিখ প্রধানমন্ত্রী জাতির উদ্দেশ্যে ভাষণ দেবেন। তার প্রেক্ষিতে আমরা পূর্ণাঙ্গ সিদ্ধান্ত আমাদের সদস্যদের জানিয়ে দেব, আমরা বন্ধে যাচ্ছি না অর্ধেক করে ফ্যাক্টরি চালাচ্ছি। ফ্যাক্টরিগুলোকে আমরা বলবো না... কেউ যদি তার ফ্যাক্টরিতে সম্পূর্ণ নিরাপত্তা দিতে পারে, তাহলে সে ফ্যাক্টরি চালু রাখতে পারবে।’

 

এসময় তিনি নিটওয়্যার খাতের দুরবস্থার চিত্র তুলে ধরেন। তিনি বলেন, ‘বর্তমান পরিস্থিতি খুবই খারাপ। আমাদের মালামাল সম্পূর্ণই রফতানিযোগ্য। ইউরোপই আমাদের প্রধান বাজার। নতুন বাজার গড়ে তুলেছিলাম।

 

আমাদের আয় বন্ধ হয়ে গেছে। বন্ধ করে দেব কিন্তু কথা একটাই থাকছে বেতন কোথা থেকে দেব? মার্চ মাসের বেতনটা আমাদের সংগ্রহ করতেই হবে। আমাদের পার্টনার হচ্ছে ব্যাংক। ব্যাংক যদি বুঝতে পারে, আমরা বন্ধ হয়ে গেলে ব্যাংকও বন্ধ হয়ে যাবে। আমরা আমাদের সদস্যদের বলেছি এখন বাড়তি উৎপাদন করবেন না।’



  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
  • নির্বাচিত