সোমবার । আগস্ট ১৫, ২০২২ । । ০১:২২ পিএম

আন্তর্জাতিক নারী দিবসে আলোকিত নারী

রাতারাতি তারকাখ্যাতি চাই না: মুন মোনালিসা

সৈনূই জুয়েল | নতুনআলো টোয়েন্টিফোর ডটকম
প্রকাশিত: 2022-03-08 12:56:18 BdST হালনাগাদ: 2022-06-06 18:25:21 BdST

‘বাবা পেশায় ব্যবসায়ি ছিলেন। তবে তিনি বাউলগানের ভীষণ অনুরাগী ছিলেন। বেহালা বাজাতে পারতেন। বাড়িতে প্রায়ই বাউল গানের আসর হত। দেশের নানান জায়গা থেকে আসতেন শিল্পীরা। তাদের গান, আড্ডা দেখে বেড়ে উঠেছি। বাউলগান, লোকগানে আমার আগ্রহী হয়ে ওঠার শুরুটা এভাবেই।’



নতুন আলো টোয়েন্টিফোর ডটকমকে দেয়া একান্ত সাক্ষাৎকারে কথাগুলো বলছিলেন এ সময়ের সম্ভাবনাময় তরুণ কণ্ঠশিল্পী মুন মোনালিসা। সাক্ষাৎকারে উঠে এসেছে গান নিয়ে তার বর্তমান কাজ ও আগামির ভাবনাসহ জীবনের নানা অনুষঙ্গ। সাক্ষাৎকার নিয়েছেন সৈনূই জুয়েল।


তরুণ কণ্ঠশিল্পী মুন মোনালিসা


মুন মোনালিসা, কাজ করছেন লোকগান নিয়ে 


 


তিনি বলেন, বাবার পরিচিত যারা গান বাজনা করতেন, তাদের মধ্যে অন্যতম ছিলেন বাবু মামা (জি চন্দন বাবু)। তার কাছে আমার গানের প্রথম হাতেখড়ি। এটি ২০০৬ সালের কথা। এরপর আমি নকুলদার (নকুল কুমার বিশ্বাস) সঙ্গে বেশ কয়েক বছর কাজ করেছি। আমি ২০১১ সাল থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে গান শেখা শুরু করি গুরুজী শফি মন্ডলের কাছে। তার সান্নিধ্যে থেকে গান শিখেছি, দেশের নানান প্রান্তে ঘুরে বেড়িয়েছি ২০১৬ সাল পর্যন্ত।



মুন মোনালিসার জন্ম ১৯৯৪ সালের ২০ এপ্রিল। ঢাকার মিরপুরে। বাবা বশির উদ্দিন তালুকদার। পেশায় ব্যবসাই ছিলেন। মা আমেনা বেগম। দুজনেই প্রয়াত। ছয় ভাইবোনের মধ্যে তিনি ছোট। পৈতৃক বাড়ি মাদারীপুর জেলার শিবচরে। তিনি ২০১০ সালে মাধ্যমিক, ২০১২ সালে উচ্চমাধ্যমিক সম্পন্ন করেন। ২০১৬ সালে তিনি ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি (ডিআইইউ) থেকে এলএলবি এবং ২০১৭ সালে এলএলএম সম্পন্ন করেন। সম্প্রতি তিনি হিউম্যান রাইটস অ্যান্ড ল বিষয়ে স্নাতকোত্তর সম্পন্ন করেছেন।


উর্বসী ফোরামের একটি অনুষ্ঠানে অন্যান্য শিল্পিদের সঙ্গে মুন মোনালিসা


উর্বসী ফোরামের একটি অনুষ্ঠানে অন্যান্য শিল্পীদের সঙ্গে মুন মোনালিসা


 


ভালবাসি লালন
বাবা লালনের গানের ভীষণ ভক্ত ছিলেন। তিনি চাইতেন আমিও লালন চর্চা করি। আমার বাবার দ্বারা ভীষণ প্রভাবিত ছিলাম। স্বভাবতই লালনের চর্চাটা আমার মধ্যে এসেছ। লালন আমার ভালোবাসার জায়গা। যখন থেকে বুঝতে শুরু করেছি, তখন থেকে আমার যত চর্চা, আগ্রহ, ভালোলাগা, তা লালন ফকিরের বাণীকে কেন্দ্র করেই। লালনের অমীয় বাণীতে আমি মন্ত্রমুগ্ধ।



গানের চর্চার বয়স বেশ অনেক বছর ধরে হলেও, মুন মোনালিসার পেশাগত সঙ্গীত চর্চার শুরুটা ২০১৮ সালে। ফলে তার কাজের সংখ্যাও কম। তবে সঙ্গীতের অঙ্গনে তিনি লালন ললনা হয়েই থাকতে চান।


বাউল শিল্পী শফি মন্ডলের সঙ্গে মুন মোনালিসা। তার কাছেই গানের তালিম নিয়েছেন মুন।


বাউল শিল্পী শফি মন্ডলের সঙ্গে মুন মোনালিসা। তার কাছেই গানের তালিম নিয়েছেন মুন।


 


মঞ্চ নাকি টেলিভিশন
বাংলাদেশ টেলিভিশন, এটিএন বাংলা, একুশে টেলিভিশন, বৈশাখী টিভি, মাছরাঙ্গা টিভি, এনটিভি, এশিয়ান টিভিসহ বিভিন্ন টিভি চ্যানেলে নিয়মিত গান করছেন মুন মোনালিসা। এছাড়াও কাজ করছেন সঙ্গীতভিত্তিক বিভিন্ন ইউটিউব চ্যানেলের জন্য। তিনি বাংলাদেশ বেতারের একজন তালিকাভুক্ত শিল্পী। পাশাপাশি মুন মোনালিসা নামে নিজের ইউটিউব চ্যানেলের জন্যও কাজ করছেন তিনি।



এক প্রশ্নের উত্তরে মুন মোনালিসা বলেন, করোনা মহামারি শুরু হবার পর থেকে লম্বা সময় টিভিতে কিংবা মঞ্চে কাজ করা হচ্ছে না। টিভিতে খুব সামান্য কিছু কাজ করা হলেও, মঞ্চে একেবারেই কাজ করা যায়নি। এখন পরিস্থিতি কিছুটা স্বাভাবিক হলেও মঞ্চে খুব একটা কাজ করা হচ্ছে না। টিভিতে আর ইউটিউবে কিছু কিছু কাজ করা হচ্ছে। মঞ্চ এবং টেলিভিশন- দু জায়গাতেই আমার ভাললাগা আছে। দুটি প্ল্যাটফর্মে কাজের ধরণ দুই রকম।


গুণগত মানের কাজ করে এগুতে চান মুন মোনালিসা


গুণগত মানের কাজ করে এগুতে চান মুন মোনালিসা


 


ইউটিউব চ্যানেলের জন্য কাজ করার অভিজ্ঞতা প্রসঙ্গে মুন মোনালিসা বলেন, ২০১৮ সালে মাসুম ভাইয়ের (সঙ্গীত কম্পোজার মীর মাসুম) সঙ্গে পরিচয় হয়। তার সঙ্গে কাজ করার আনন্দটা একেবারেই আলাদা। তিনি বেশ চুজি মানুষ। কম্পোজার হিসেবে তার কাজ বেশ আলাদা করা যায়। তার সঙ্গেই ইউটিউবে আমার প্রথম আনুষ্ঠানিক কাজ হয়।



মীর মাসুমের প্রযোজনা সংস্থা ও ইউটিউব চ্যানেল ‘গায়েন বাড়ি’তে এরই মধ্যে মুন মোনালিসার ৬টি গান প্রকাশিত হয়েছে।


মীর মাসুমের সঙ্গে মুন মোনালিসা। ২০১৮ সালের একটি গানের সেট থেকে তোলা ছবি।


| মীর মাসুমের সঙ্গে মুন মোনালিসা। ২০১৮ সালের একটি গানের সেট থেকে তোলা ছবি।


 


উর্বশী ফোরাম গানের সিঁড়ি ইউটিউব চ্যানেলের জন্য তিনি সম্প্রতি 'মন দিলাম মান দিলাম' শিরোনামে একটি মৌলিক গানের কাজ করেছেন।



এ পর্যন্ত মুন মোনালিসার আটটি মৌলিক, ১৫টি লালন, বেশ কিছু মিশ্র ঘরানারসহ ৩৮টি গান করেছেন।


বেড়াতে ভালবাসেন মুন মোনালিসা। ২০২১ সালে টাঙ্গুয়ার হাওরে তোলা ছবি।


| বেড়াতে ভালবাসেন মুন মোনালিসা। ২০২১ সালে টাঙ্গুয়ার হাওরে তোলা ছবি।


 


তার গাওয়া মৌলিক গানগুলো হচ্ছে- নৌকা (কথা: কামরুল ইসলাম, সুর: শফি মন্ডল, সঙ্গীত: মীর মাসুম), স্বপ্ন মইরা যায় (কথা ও সুর: জাহাঙ্গীর রানা, সঙ্গীত: শান সায়েক), কান্দাইলে কাঁদিতে হবে (কথা ও সুর: সাইফুল্লাহ রুমী, সঙ্গীত: এএইচ জীবন), মন দিলাম মান দিলাম (কথা: রামাচরণ, সুর: প্লাবন কোরেশী, সঙ্গীত: এএইচ তূর্য ), রাধা হইতে কপাল লাগে (কথা ও সুর: মোল্লা জালাল, সঙ্গীত: মুশফিক লিটু), কইবো কারে (কথা ও সুর: মোল্লা জালাল, সঙ্গীত: মুশফিক লিটু), রঙিলা পাখি (কথা ও সুর: গরীব সঞ্জয়, সঙ্গীত: মুশফিক লিটু), উদাসী হইয়া (কথা ও সুর: সুহেল মিয়া, সঙ্গীত: মুবারক)।



গায়েনবাড়ি ইউটিউব চ্যানেলের জন্য তার গাওয়া লালনের গান তিনটি, মুন মোনালিসা ইউটিউব চ্যানেলের জন্য ১৫টি গান করেছেন।


২০১৭ সালের একটি অনুষ্ঠানে সম্মাননা ক্রেস্ট নিচ্ছেন মুন মোনালিসা, পাশে শফি মন্ডল


| ২০১৭ সালের একটি অনুষ্ঠানে সম্মাননা ক্রেস্ট নিচ্ছেন মুন মোনালিসা, পাশে শফি মন্ডল


 


তার গাওয়া লালনের গানগুলো হচ্ছে - রবেনা এ ধন (সঙ্গীত: মীর মাসুম), চিত্ত মন্দতম (সঙ্গীত: মীর মাসুম), রূপকাষ্ঠের নৌকা (সঙ্গীত: মীর মাসুম), বাড়ির পাশে আরশীনগর (সঙ্গীত: বাপ্পি), নিগুঢ় প্রেম (সঙ্গীত: বাপ্পি), এমন মানব জনম (সঙ্গীত: সুমন রেজা খান), গুরু চরণ (সঙ্গীত: সুমন রেজা খান), নবীর নৌকা (সঙ্গীত: বাপ্পি), হীরে মন জহুরা (সঙ্গীত: সুমন রেজা খান), কৃষ্ণ প্রেমে (সঙ্গীত: বাপ্পি), মুখে পড়রে সদা (সঙ্গীত: বাপ্পি), শুধু মুখের কথায় (সঙ্গীত: বাপ্পি), না জানি (সঙ্গীত: বাপ্পি), আল্লাহ বলো (সঙ্গীত: শামসুজ্জামান) আমার ঘর খানায় (সঙ্গীত: সুমন রেজা খান)। এসব গান ইউটিউবের বিভিন্ন চ্যানেলে প্রকাশিত এ গানগুলো খুঁজলেই পাওয়া যাবে।


লোকসঙ্গীত শিল্পী মুন মোনালিসা


| লোকসঙ্গীত শিল্পী মুন মোনালিসা


 


অ্যাডভোকেট মুন মোনালিসা কতদূর
বার কাউন্সিল পরীক্ষার জন্য একটু পড়াশোনায় সময় দিচ্ছি । বলা হয়ে থাকে- আকাশের যত তারা, আইনের তত ধারা। খুবই জটিল, কঠিন আর ঝামেলার ব্যাপার এসব ধারা-উপধারা মনে রাখা। স্বপ্ন দেখি আইনজীবী হব। সে জন্য চেষ্টাও আছে।